জুড়ীতে ছাদ কৃষি উদ্বোধন করলেন সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান

সাইফুল ইসলাম সুমন: ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরের লোকসংখ্যা অনুযায়ী যে পরিমাণ গাছ থাকার কথা, তার সিকি ভাগের উপস্থিতিও লক্ষ্য করা যায় না। পরিবেশ বিপর্যয় রোধে পৃথিবীর দেশে দেশে নগর পরিকল্পনায় যোগ হচ্ছে সবুজ প্রকৃতির। ছাদ কৃষি পরিবেশের ভারসাম্যতা রক্ষার পাশাপাশি সবুজ অর্থনীতিতে নতুন সংযোজন হিসেবে আশা জাগিয়েছে। ছাদ কৃষির মাধ্যমে বাগান বিস্তারে ভূমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত হচ্ছে। দালান-কোঠার সৌন্দর্য বৃদ্ধির পাশাপাশি তাপমাত্রা হ্রাস করা সম্ভব হচ্ছে। ছাদের সবুজ স্তর বিভিন্ন ট্রান্সমিটিং স্টেশন থেকে নিঃসরিত ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ওয়েভকে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় প্রতিহত করছে। মোট কথা ছাদ কৃষি বহুমাত্রিক সুবিধা ও সম্ভাবনার উৎস হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। গবেষকরা বলছেন- একটা সবজি গাছ তিন মাসের জন্য হলেও বায়ু থেকে তিনজনের প্রয়োজনীয় অক্সিজেন রিসাইক্লিন করতে পারে। তাহলে তিন মাস কালের সবজি কিংবা বহুবর্ষী ফলের গাছ লাগিয়ে বায়ুর পরিশুদ্ধতা রক্ষা করা সম্ভব হলে আমাদের উচিত ছাদ কৃষিতে মনোনিবেশ করা।

এদিকে গত বুধবার (২৭ নভেম্বর) দুপুরে মৌলভীবাজারের জুড়ীতে পূর্বজুড়ী ইউনিয়ন পরিদর্শন শেষে ইউনিয়নের কমপ্লেক্সের ছাদে জুড়ীর প্রথম কৃষি ছাদ বাগানের উদ্বোধন করেন সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান পিএএ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খোদেজা খাতুন, জুড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ মোঈদ ফারুক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বনিক, সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবীর, সহকারী কমিশনার (ভূমি) নূসরাত লায়লা নীরা, জুড়ী থানার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিংকু  রন্জন দাস, রন্জিতা শর্মা, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন, পূর্বজুড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সালেহ উদ্দিন আহমদ, গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন লেমন, জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি হুমায়ুন রশীদ রাজী প্রমুখ।

No comments: