মৌলভীবাজার সীমান্তে ভারতীয় অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বিজিবি ও স্থানীয়দের বাড়তি নজরদারি

বিশেষ প্রতিনিধিঃ ভারতের লোকজন অবৈধ ভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে পারে এমন খবরে উদ্বেগ উৎকন্ঠায় জেলার সীমান্তবর্তী এলাকার বাসিন্দারা। তবে তাদের উদ্বেগ উৎকন্ঠা দূর করতে যে কোনো ধরনের অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বাড়তি সর্তকতায় জেলার সীমান্তবর্তী এলাকার বিজিবি। তাদের সাথে জেলার স্থানীয় বাসিন্দারাও রাখছেন সর্তক দৃষ্টি।  

জানা যায় ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের চূড়ান্ত জাতীয় নাগরিক তালিকা (এনআরসি) প্রকাশ হওয়ার পর মৌলভীবাজারের সীমান্তবর্তী এলাকায় বিজিবির নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। বিজিবি ৪৬ ও ৫২ সেক্টরসুত্রে জানা যায় ওই ঘটনার পর থেকে সীমান্ত এলাকায় তাদের নিয়মিত টহলের পাশাপাশি অবৈধ ভাবে যে কোন ধরনের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বাড়তি সর্তকতার জন্য ফোর্সও বাড়ানো হয়েছে। এনআরসির ওই তালিকা থেকে বাদ পড়া কেউ যাতে অবৈধ ভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেজন্য জেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় বিজিবির এখন সতর্ক দৃষ্টি রয়েছে। শ্রীমঙ্গল সেক্টরের ৪৬ বিজিবির পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফুল হক বলেন ‘আসামের সঙ্গে যেসব সীমান্ত রয়েছে সেখানে বিজিবির বাড়তি নজরদারি ও বিশেষ সতর্কতা রয়েছে। তিনি জানান তাদের ব্যাটলিয়নের আওতায় ভারতের ত্রিপুরা ও মিজুরিয়াম সিমান্ত রয়েছে। জেলার দুটি উপজেলা জুড়ী ও বড়লেখা আসাম সীমান্তে। সেটি ৫২ বিজিবির আওতাধীন।’ তারপরও প্রতিনিয়তই আমাদের সর্তক দৃষ্টি রয়েছে যাতে সীমান্ত দিয়ে যে কোনো ধরনের অবৈধ অনুপ্রবেশ বা অপরাধ সংঘটিত হতে না পারে।  

বিজিবি ৫২ ব্যাটালিয়নের (বিয়ানীবাজার) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান এসপিপি, পিএসসি বলেন, বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলার সীমান্ত এলাকায় অবৈধ ভাবে অনুপ্রবেশ, নারী ও শিশু পাচার, সীমান্ত হত্যা নির্যাতন, মাদকদ্রব্য এবং গবাদিপশু চোরাচালান বন্ধের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ি ইউনিয়নের লাঠিটিলা সীমান্তের ১৪০০ নং পিলার এলাকায় বিজিবি ও বিএসএফের পতাকা বৈঠক হয়েছে। সেখানে বিএসফের ১৩৪ ব্যাটালিয়নের কমান্ডেন্ট শ্রী এল হাওলাই উপস্থিত ছিলেন।’ তিনি আরও বলেন,আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে বিশেষ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বিজিবি। তবে বিজিবির অনেক কর্মকর্তা জানান সীমান্তবর্তী এলাকার বাসিন্দারা যদি সীমান্ত এলাকায় কোথাও এধরনের কোন লোকসমাগম কিংবা যে কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড দেখেন তাহলে আমাদের খবর দিয়ে সহযোগিতার অনুরোধ করছি। ভারতের সাথে মৌলভীবাজারের সীমান্ত এলাকায় শ্রীমঙ্গল, কমলগঞ্জ, কুলাউড়ায়, বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলার অবস্থান। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বড়লেখা, জুড়ী ও কুলাউড়া উপজেলার সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা জানান ভারতীয় নাগরিকরা এদেশে অবৈধভাবে এদেশে আসতে পারে এজন্য আমরা দুশ্চিন্তায় থাকলেও সর্তক রয়েছি। তারা বলেন জনসংখ্যা বহুল এদেশে এমনিতে রোহিঙ্গাদের বাড়তি চাপ। তারপর যদি ওরা আসে তাহলেতো আমাদেরকে না খেয়েই মরতে হবে। ভারতীয় নাগরীকরা অবৈধ ভাবে এদেশে অনুপ্রবেশ করতে পারে এখবর পাওয়ার পর গেল ক’দিন থেকে আমরা চরম দুশ্চিন্তায় আছি। হঠাৎ কখন ওরা আমাদের এলাকায় ঢুকে পড়ে। আর আমাদের বাড়িঘর আর জায়গা জমিতে আশ্রয় নেয়। আমরা চাইব যাতে কোনভাবেই ওই ভারতীয় নাগরীকরা আমাদের দেশে অনুপ্রবেশ করতে না পারে। এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও সরকার যেন সর্তক দৃষ্টি রাখেন। উল্লেখ্য ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামে নাগরিকদের নামের চূড়ান্ত তালিকা ৩১ আগস্ট শনিবার প্রকাশ করে।  এ তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন রাজ্যের ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭ জন।

No comments: