জুড়ীতে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ মোকাবেলায় উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

সাইফুল ইসলাম সুমনঃ ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র আঘাত মোকাবেলায় মৌলভীবাজারের জুড়ীতে উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির এক জরুরী সভা বৃহস্পতিবার ২ মে বিকাল ৪ টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বনিক এর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির এই সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বনিকের সভাপতিত্বে ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মোহাম্মদ ওমর ফারুক এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পুলিশ কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের কর্মকর্তা, শিক্ষক, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র আঘাত মোকাবেলায় পূর্ব প্রস্তুতি, জনসচেতনতা বৃদ্ধি, প্রয়োজনীয় আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত ও উপজেলায় কন্ট্রোল রুম খোলার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। প্রলয়ংকরী ‘ফণি’ মোকাবিলায় শুক্র, শনি ও রোববার সবাইকে বিশেষ সতর্ক অবস্থায় থাকার জন্য বলা হয়।
 
ইতিমধ্যে জুড়ীতে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র প্রভাব মোকাবেলায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ইউনিয়নভিত্তিক আশ্রয় কেন্দ্র। এছাড়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বুধবার রাত থেকে স্থানীয় চেয়ারম্যান এবং গণমাধ্যমগুলোর মাধ্যমে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র প্রভাব মোকাবেলায় উপজেলাবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানানো হচ্ছে। ‘ফণি’র প্রভাবে আকস্মিক বন্যা হবার উপক্রম বা অন্য কোনো কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হবার সম্ভাবনা তৈরি হলে বন্যা আশ্রয়ন কেন্দ্রে প্রাথমিকভাবে অবস্থান নেওয়ার জন্য ওইসব এলাকার বাসিন্দাদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে আহ্বান করা হয়।  ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ সম্পর্কে জনগণকে ব্যাপক ভাবে অবহিত করার জন্য সারা উপজেলায় মাইকিং অব্যাহত রয়েছে।  ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ সম্পর্কে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মাঝে  ব্যাপক প্রচারণার ব্যবস্থা গ্রহণকরা হয়েছে। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের মাধ্যমে মসজিদ ও মন্দিরে মাইক দিয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ সম্পর্কে প্রচারণার কথা বলা হয়। কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সেজন্য দ্রুত ধান কাটার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার মাধ্যমে কৃষকদের অবহিত করার সিদ্ধান্ত হয়। দুর্যোগকালীন প্রতিটি এলাকায় মেডিকেল টিম গঠনের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়। দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবলোর জন্য একটি স্কাউট টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য একটি মনিটরিং টিম গঠন করা হয়।
 
এছাড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে কন্ট্রোল রুমের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। যে কোনো সমস্যায়, জরুরী প্রয়োজনে কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মুঠোফোন (০৮৬২৭-৫৭০০৭, ০১৭১৭-১৮১১১০, ০১৭৪৫-২৩৬৩২৫) নম্বরে কল করার জন্য বলা হয়েছে। এছাড়াও জরুরী প্রয়োজনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মুঠোফোন ০১৭৩০-৩৩১০৭৫ নম্বরেও  যোগাযোগের আহ্বান জানানো হয়েছে।

এদিকে, শুক্রবার জুম্মার খুৎবা বা সুবিধাজনক সময়ে ঘুর্ণিঝড় ‘ফণি’র বিষয়ে এলাকাবাসীকে অবহিত করতে ইমামদের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বনিক বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে উপজেলাজুড়ে ইউনিয়নভিত্তিক আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে। ওইসব স্কুলের প্রধান শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও প্রদান করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর চাবি নিয়ে দপ্তরি কিংবা অন্য কেউ যাতে সার্বক্ষণিক তৎপর থাকেন সেটা বলা হয়েছে। এছাড়া পরিস্থিতি বুঝে আরোও আশ্রয় কেন্দ্র বাড়ানোর ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

No comments: