পরিবেশ-বন-হাওর রক্ষায় সকলের সম্পৃক্ততা প্রয়োজন; জুড়ীতে মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন

সাইফুল ইসলাম সুমনঃ মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলাধীন জুড়ী রেঞ্জ এর পুটিছড়া বিটের সামাজিক বনায়নের ও কুলাউড়া এসএফএনটিসি উপকারভোগীদের মধ্যে লভ্যাংশের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এম.পি বলেছেন, পরিবেশ-বন-হাওর রক্ষায় সকলের সম্পৃক্ততা প্রয়োজন। তাই আমাদের সকলকে সামাজিক ভাবে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমাদের সিলেটে শত-শত পাহাড় ও বনাঞ্চল রয়েছে, এসব পাহাড় ও বন কে যে কোন মূ্ল্যে দূষণমুক্ত রাখতে হবে। ইট ভাটাগুলো বতর্মানে যে পদ্ধতিতে রয়েছে তা পরিহার করতে হবে এবং নতুন পদ্ধতিতে পরিবেশ সম্মত ইট ভাটা স্থাপন করতে হবে। মন্ত্রী আরো বলেন, জুড়ীতে শিগ্রই একটি ইকো পার্ক স্থাপন করা হবে।
 
গত রবিবার (৩১ মার্চ) সকাল ১১ টায় জুড়ী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘সিলেট বন বিভাগের আয়োজনে ও জুড়ী উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে জুড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বনিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এম.পি। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আর.এস.এম মুনিরুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গুলশান আরা মিলি, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা বদরুল হোসেন, যুগ্ম আহবায়ক ও ফুলতলা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুক আহমদ, জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার, পূর্বজুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান সালেহ উদ্দিন আহমদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন, শ্রীমঙ্গলের সহকারী বন সংরক্ষক জি.এম.আবু বকর সিদ্দিক। অনুষ্ঠানে সিলেট বন বিভাগের কর্মকর্তা, উপকারভোগী ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

এসময় মন্ত্রী ৫৩ জন উপকারভোগীর মধ্যে ২৫ লাখ ৩৮ হাজার ৫১৪ টাকার লভ্যাংশের চেক বিতরণ করেন। জুড়ী রেঞ্জের ৩০ হেক্টর বাঁশ বাগানের ৩০ জন উপকারভোগীর মধ্যে ১৩ লাখ ৭০ হাজার ২৭৮ টাকা ও জুড়ী রেঞ্জের ১৫ হেক্টর বাঁশ বাগানের ১৪ জন উপকারভোগীর মধ্যে ২ লাখ ৯২ হাজার ১৪ টাকা এবং কুলাউড়া এসএফএনটিসির ২ কি.মি.স্ট্রিপ বাগানের ৯ জন উপকারভোগীর মধ্যে ৮ লাখ ৭৬ হাজার ২২২ টাকা বিতরণ করা হয়। এছাড়াও জায়ফরনগর ইউনিয়ন পরিষদে ৮৮ হাজার ৫০৭ টাকার লভ্যাংশের চেক বিতরন করা হয়।


No comments: