চ্যালেঞ্জ নিয়েই পরিবেশ বাঁচাবেন শাহাব উদ্দিন

বিশেষ প্রতিনিধিঃ জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশের পরিবেশের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। যে কারণে ঝুঁকিতে আমাদের দেশ ও জনগণ। এই ঝুঁকি মোকাবেলা করা বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরই মধ্যে ওই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় উদ্যোগ নিয়েছেন। বৈশ্বিক কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের পাশাপাশি স্থানীয় উদ্যোগে কাজ শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী ওই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে চান নতুন সরকারের পরিবেশ, বন ও জয়বায়ু মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি।

গতকাল সোমবার দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন। ইউনিয়ন পরিষদের নেতৃত্ব থেকে শুরু করে সর্বশেষ পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া এই রাজনীতিকের সঙ্গে কথা হয় জাতীয় সংসদ এলাকায় তাঁর বাসভবনে। সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য উন্নত দেশগুলো বেশি দায়ী হলেও তাদের কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত ক্ষতিপূরণ আদায় করা যাচ্ছে না। বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে উন্নত দেশগুলো নানা প্রতিশ্রুতি দিলেও তা রক্ষা করছে না। তবে ক্ষতিপূরণ আদায়ের ক্ষেত্রে সরকার আন্তরিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তিনি বলেন, শুরু থেকে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর নেতৃত্বে আছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেখানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আগামী দিনে ক্ষতিপূরণ আদায়ের জন্য তৎপরতা জোরদার করা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নদ-নদী, খাল-বিলসহ জলাশয় ধ্বংসের পেছনে যেমন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব রয়েছে, তেমনি মনুষ্যসৃষ্ট কিছু কারণ রয়েছে। তাই কারণগুলো চিহ্নিত করে মন্ত্রণালয়কে সুনির্দিষ্টভাবে কাজ করতে হবে। এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী নদ-নদী খনন ও খাল-বিল সংস্কারসহ জলাশয় রক্ষায় বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছেন। ওই সব উদ্যোগ বাস্তবায়নে যথাসাধ্য চেষ্টা চালাবেন বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন তিনি।

দেশের বনাঞ্চলের অবস্থা তুলে ধরে নতুন বনমন্ত্রী বলেন, একটি দেশের জন্য যতটা বনভূমি থাকা প্রয়োজন, বাংলাদেশে এর চেয়ে কম আছে। এর পরও বনভূমি দখল ও উচ্ছেদের অভিযোগ রয়েছে। আগামী দিনে ওই সব অভিযোগ তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, বনভূমি বাড়াতে সামাজিক বনায়নকে গুরুত্ব দেওয়া হবে। বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনকে রক্ষায় সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নেওয়া হবে। রয়েল বেঙ্গল টাইগারসহ (বাঘ) বন্য প্রাণী ও বিলুপ্তপ্রায় গাছগাছালিসহ জীববৈচিত্র্য রক্ষায় উদ্যোগ নিতে হবে।

No comments: