জুনাব আলী’র স্বপ্ন পূরণ

সাইফুল ইসলাম সুমন, জুড়ী থেকেঃ ইচ্ছা, অধ্যাবসায়, আর্থিক অনুদান এবং উপযুক্ত পরিশ্রমে বদলে দিতে পারে কোন অসচ্ছল ব্যক্তির জীবন। এমনই এক ব্যক্তি জুনাব আলী (৬৫) প্রায় ২০ বছর যাবৎ মানুষের বাসা-বাড়ী ও ধারে ধারে ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে প্রতিদিনই ঘুরে বেড়াতেন। যাতে পরিবারের দু’বেলা আহার জুটে। জুনাব আলী’র সংসারে আয় কারার মতো উপযুক্ত কেউ নেই! অভাব অনটনের সংসারে তিনিই মূলত জীবিকা নির্বাহের প্রধান মাধ্যম। আর জীবিকা নির্বাহের একমাত্র মাধ্যম তিনি ভিক্ষাকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করা ছাড়া দ্বিতীয় কোন পথও ছিলনা তার। 

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৭ জুলাই  তিনি ভিক্ষুকমুক্ত জুড়ী উপজেলা প্রশাসনের দানকৃত সামগ্রী পেয়ে স্থানীয় কলাবাড়ী বাজারে কাঁচা মালের ব্যবসা শুরু করার মাধ্যমে নিজের অতীত জীবন পরিবর্তন করতে পেরেছেন। দিকদিগন্তের সাথী ভিক্ষার ঝুঁলি ত্যাগ করে আত্মনির্ভরশীল হওয়ার স্বপ্নকে বুকে ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছেন সামনের দিকে। তখন একপ্রতিক্রিয়ায় জুনাব আলী বলেছিলেন, উপজেলা প্রশাসনের দেয়া অনুদানে তিনি সন্তুষ্ট। যা দিয়ে তিনি ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে ব্যবসা শুরু করেন। তখন তার বিশ্বাস ছিলো, এই ব্যবসার মাধ্যমে পুঁজি সঞ্চয় করে আগামীতে মুদি দোকানি ব্যবসা শুরু করবে। সেই থেকে তার চিন্তাচেতনায় আর কারো হাতের দিকে না তাকিয়ে নিজেকে আত্মনির্ভরশীল করার দৃঢ় চেষ্টা অব্যাহত রাখেন। 

আজ জুনাব আলীর সেই লালিত স্বপ্ন মুদি দোকানি ব্যবসা শুরু করার মাধ্যমে স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। তবে ব্যবসাকে আরো চাঙ্গা করতে ব্যাপক পুঁজি দরকার। আর্থিক অস্বচ্ছলতা থাকার কারণে সেই পুঁজি জোগাড় করার জন্য হিমসিম খাচ্ছে। এদিকে জুনাব আলীর এই পারফর্মেন্স দেখে সম্প্রতি নগদ ১০ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছে জুড়ী উপজেলা প্রশাসন। জুনাব আলী ভিক্ষুকমুক্ত জুড়ী উপজেলার সাগরনাল ইউনিয়নের দক্ষিণ বড়ডহর গ্রামের বাসিন্দা। তবে তার নিজের কোন বাড়ী নেই। অন্যের বাড়ীতে স্ত্রী, ৬ মেয়ে ও ১ ছেলে নিয়ে তার সংসার।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বনিক বলেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমরা আমাদের উপকারভোগী সকল ভিক্ষুকের ব্যবসায়ী পারফর্মেন্স দেখে তাদের আরো অনুদান দেওয়ার ব্যবস্থা করব। তাদেরকে দেওয়ার জন্য আমাদের দারিদ্র তহবিলে ৫০ হাজার টাকা সংরক্ষিত আছে এবং একটি বাড়ী একটি খামার পরিকল্পনা থেকে যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী তাদেরকে লোন প্রদান করা হবে। এমনকি তাদেরকে প্রতি মাসে ৩০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে। তারই ধারাবাহিকতায় জুনাব আলী’কে ১০ হাজার টাকা নগদ অনুদান দেওয়া হয়েছে।

No comments: