সংবিধান মেনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী নাসিম

সাইফুল ইসলাম সুমনঃ ‘ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে জাতীয় সংসদের নির্বাচন হবে। দুনিয়ার কোনো শক্তি নাই নির্বাচন বন্ধ করার। সংবিধান মেনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন হবে।’ আজ মঙ্গলবার দুপুরে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার নবনির্মিত ৫০ শয্যাবিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্বোধন উপলক্ষে সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এমপি
 
বিএনপির উদ্দেশে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচনে ভয় পান কেন? নির্বাচনের মাঠে আসুন। মাঠ ছেড়ে পালাবেন না। সংবিধান সংশোধনের কোনো সুযোগ নেই। আমেরিকা-ইউরোপে যেভাবে নির্বাচন হয়, এই দেশেও সেভাবে হবে। নির্বাচনে সমান সুযোগ পাবেন। ক্যামেরা থাকবে, সাংবাদিকেরা থাকবেন। ২০১৪ সালে ট্রেন মিস করে ভুল করেছেন। আম-ছালা দুটোই গেছে। আশা করি আগামী নির্বাচনে আর এই ভুল করবেন না।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মো. নাসিম বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন না হলে দেশে মার্শাল ল থাকত। নির্বাচন হয়েছিল বলেই দেশে আজ উন্নয়ন হচ্ছে। শান্তি ও গণতন্ত্র এসেছে। উন্নয়নের জন্য সময়ের দরকার, উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য বলেন, ‘শেখ হাসিনা একনাগাড়ে ১০ বছর ক্ষমতায় থাকায় গ্রামগঞ্জে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এই ধারা অব্যাহত রাখতে হলে আগামী নির্বাচনেও নৌকায় ভোট দিতে হবে।’

বেলা দুইটার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে জাতীয় সংসদের হুইপ ও স্থানীয় মৌলভীবাজার-১ আসনের সাংসদ মো. শাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন মৌলভীবাজার-২ আসনের সাংসদ আবদুল মতিন, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম.এ মুহিম, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বাবুল কুমার সাহা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান, জুড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গুলশান আরা চৌধুরী মিলি, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও জুড়ী উপজেলা আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা বদরুল হোসেন প্রমুখ।
  
সুধী সমাবেশে জুড়ী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখরুল ইসলামের পরিচালনায় মানপত্র পাঠ করেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মামুনুর রশিদ সাজু ও ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করেন জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ হৈমন্তিকা পাল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ তোফায়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার শাহ-জালাল, সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ.কে মাহবুবুল হক, জুড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকার্তা অসীম চন্দ্র বনিক, মৌলভীবাজার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডাঃ বিরেন্দ্র ভৌমিক, সিলেট মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের ২২ নং ওয়ার্ডের সভানেত্রী ও বিশিষ্ট সমাজসেবী-নারী নেত্রী শামিম আরা বেবী, জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গির হোসেন সরদার, জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মহি উদ্দিন প্রমুখ।

এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফিতা কেটে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেন। সমাবেশ শেষে তিনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে একটি বকুল ফুলের গাছের চারা রোপণ করেন। পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জুড়ী থেকে পাশের বড়লেখা উপজেলায় যান। সেখানে তিনি ৫০ শয্যাবিশিষ্ট বড়লেখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘বিগত নির্বাচনে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসায় আপনারা উন্নয়ন পাচ্ছেন। এখন ভোটের মাধ্যমে তা ফেরত দেওয়ার পালা। গত দশ বছরে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে অনেক দিয়েছেন। শোককে বুকে ধারণ করে একাত্তরের ঘাতক দালালদের বিচার করেছেন। বিগত কোন সরকারই এদের বিচার করে নাই। এত কিছুর পরও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছেন। যার ফলে দু’মুঠো ভাত খেয়ে মানুষ সুখে আছে। খাদ্যে প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। মায়ের মমতা নিয়ে শেখ হাসিনা উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে। জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে নতুন নতুন কমিউনিটি ক্লিনিক হচ্ছে। সে ধারাবাহিকতায় আরও ৭ হাজার ডাক্তার নিয়োগ হবে। জুড়ীতেও আরো কমিউনিটি ক্লিনিক হবে। আমার মেয়াদকালীন সময়ে জুড়ী ও বড়লেখা হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন হল।’ এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে নাসিম বলেন, ‘এই মাসেই আপনাদের হাসপাতালে একটি অ্যাম্বুলেন্স দেয়া হবে। পাশাপাশি এ হাসপাতালে চিকিৎসক ও নতুন সরঞ্জাম দ্রুত সময়ে পৌঁছে যাবে। তাছাড়া মৌলভীবাজার জেলায় একটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হবে। তবে কিছু দাবি এখন পূরণ করবো না। নির্বাচনে জিতলে পূরণ করা হবে। তাই আপনারা হাত তুলে ওয়াদা করেন। এই সরকারকে আবারও ক্ষমতায় দেখতে চান।   

No comments: