দুই যুবককে হিজড়া বানাতে পুরুষাঙ্গ ফেলে দেয়ার অভিযোগ

এ এক ভয়াবহ বর্বরতা। ঝিনাইদহের দুই যুবককে অচেতন করে ফেলে দেয়া হয়েছে পুরুষাঙ্গ। ছিদ্র করা হয় নাক-কান। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই অভিযোগ স্থানীয় এক হিজড়া সর্দারের বিরুদ্ধে। সন্তানদের এমন করুণ পরিণতিতে দিশেহারা ওই দুই যুবকের পরিবার। অভিযুক্তর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা
 ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নিশ্চিন্তপুর ও ঘোপপাড়া গ্রাম। সম্প্রতি এই দুই গ্রামের দুই যুবকের সাথে ঘটে যাওয়া বর্বর ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে গ্রামের মানুষ। শরিফুল ইসলাম ও কাজল হোসেন। পেশায় দিনমজুর। কালীগঞ্জের দাসপাড়ার হিজড়াসর্দার রত্নার সাথে চেনাজানা ছিলো দুজনেরই।
অভিযোগ রয়েছে- ঈদের ১০ দিন আগে বেড়াতে যাবার কথা বলে ওই দুই যুবকে নিয়ে গাড়িতে করে লাপাত্তা হয় হিজড়া সর্দার রত্না। নিখোঁজের ১৫ দিন পর তারা ফিরেও আসে বাড়িতে। কিন্তু, আর আগের অবস্থায় নয়। শরিফুল ও কাজল জানান, তাদেরকে না জানিয়ে অচেতন করে অস্ত্রপচারের মাধ্যমে কেটে ফেলা হয়েছে পুরুষাঙ্গ ও অন্ডকোষ। ছিদ্র করা হয় নাক-কানও। তাদের মধ্যে শরিফুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক। সন্তানের এমন করুণ পরিনতিতে দিশেহারা দুই পরিবারের অভিভাবকরা। ঘটনার পর থেকে এলাকায় দেখা নেই ওই হিজড়া সরদারের। রত্মার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তার সাঙ্গরা। স্থানীয় হাসপাতালের চিকিৎসক বলছেন- শরীরের স্পর্শকাতর অঙ্গ বাদ দিয়ে হিজড়া বানানোর প্রক্রিয়ায় রয়েছে মৃত্যুঝুঁকি। অন্যদিকে, এই ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানিয়েছেন মানবাধিকার সংস্থার কর্মকর্তা।

ঝিনাইদহে সর্বত্র আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে হিজড়া সেজে অর্থ উপার্জন। যুবকদের ধরে নিয়ে হিজড়া বানানোর এ হেনো ভয়ংকর ঘটনায় উদ্বিগ্ন স্থানীয়রা।

No comments: