অ্যাওয়ার্ড গ্রহণকালে প্রধানমন্ত্রী : নারীর ক্ষমতায়নে বৈশ্বিক জোট গঠন করুন

জুড়ী টাইমস সংবাদঃ নারীর ক্ষমতায়নে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গতকাল বৃহস্পতিবার গ্লোবাল ওমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড-১৮-এ ভূষিত করা হয়েছে। এই সম্মাননা পুরস্কার গ্রহণকালে শেখ হাসিনা তার বক্তৃতায় নারীর ক্ষমতা কাজে লাগাতে, তাদের সহযোগিতা করতে এবং অধিকার তুলে ধরতে একটি নতুন বৈশ্বিক জোট গঠনের আহ্বান জানিয়েছেন। পাশাপাশি বিশ্বের নারীদের এবং যারা নারীর ক্ষমতায়নের জন্য কাজ করছেন তাদের উদ্দেশ্যে তিনি এই পুরস্কার উৎসর্গ করেন।

উল্লেখ্য, নারীর ক্ষমতায়নে অসামান্য অবদানের জন্য যুুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গ্লোবাল সামিট অব ওমেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এই গ্লোবাল ওমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড-১৮ প্রদান করে। তিনি গ্লোবাল ওমেন সামিটে অংশ নেয়া এবং গ্লোবাল ওমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড-১৮ গ্রহণ করতে বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করছেন।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে অবস্থিত ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে এক বিশেষ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনার হাতে গ্লোবাল ওমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড-১৮ তুলে দেন গ্লোবাল ওমেন সামিটের প্রেসিডেন্ট আইরিন নাতিভিদাদ।
এ অনুষ্ঠানে বিশ্বের বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রায় দেড় হাজার নার নেতৃত্ব যোগ দেন। শেখ হাসিনার পুরস্কার গ্রহণকালে উপস্থিত নারী নেতৃবৃন্দ দাঁড়িয়ে সম্মান দেখানোর পাশাপাশি মুহুর্মুহু করতালির মাধ্যমে অভিনন্দন জানান। অনুষ্ঠান উপলক্ষে এক জাঁকজমকপূর্ণ নৈশভোজের আয়োজন করা হয়। শেখ হাসিনার হাতে পুুরস্কার তুলে দেয়ার আগে তার রাজনৈতিক জীবন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ও নারীর ক্ষমতায়নে তার সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের ওপর একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষে অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী উপস্থিত ছিলেন।

শেখ হাসিনা তার বক্তৃতায় বলেন, নারীর সহযোগিতা ও তাদের অধিকার তুলে ধরতে আমাদের একটি নতুন জোট গঠন করতে হবে। লাখো নারীর স্বার্থে আমরা অবশ্যই আমাদের অভিন্ন সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং মূল্যবোধ নিয়ে একত্রে কাজ করতে হবে। মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কারের জন্য মনোনীত করার জন্য শেখ হাসিনা গ্লোবাল সামিট ওমেন কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। পুরস্কার গ্রহণ করে অত্যন্ত আনন্দিত ও গভীর সম্মানিত বোধ করছেন উল্লেখ করার পাশাপাশি বিশ্বের নারীদের এবং যারা নারীর ক্ষমতায়নের জন্য কাজ করছেন তাদের উদ্দেশ্যে তিনি এই পুরস্কার উৎসর্গ করেন। শেখ হাসিনা বলেন, নারী চেঞ্জ মেকারদের দেখতে পাওয়া তার জন্য অনেক আনন্দের বিষয়। তিনি সবাইকে প্রান্তিক, দুস্থ’, অনাহারি এবং বিদ্যালয়ে যেতে অনাগ্রহী ও নির্যাতিত নারীদের পাশে দাঁড়াতে গতানুগতিক লিঙ্গবৈষম্য থেকে ফিরে এসে নারীর সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। সব ক্ষেত্রে নারীর সমান সুযোগ সৃষ্টির ওপর গুরুত্ব আরোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো মেয়ে বা নারী পিছিয়ে পড়ে থাকবে না। তিনি নারীদের স্বাস্থ্য সমস্যা দূর এবং উৎপাদনশীলতা জোরদার করার বিশেষ আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, ‘গ্লোবাল ওমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ একটি আজীবন সম্মাননামূলক স্বীকৃতি। গত বছর জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এ পদক পান। এর আগে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন, ইউনেস্কোর সাবেক মহাপরিচালক ইরিনা বোকোভা, জাতিসংঘের সাবেক শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার সাদাকো ওগাতা, চিলির সাবেক প্রেসিডেন্ট মিশেল ব্যাশেলেট, আয়ারল্যান্ডের সাবেক রাষ্ট্রপতি মেরি রবিনসনসহ অনেক প্রথিতযশা ব্যক্তিকে মর্যাদাপূর্ণ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়।

No comments: