বাংলাদেশ জন্ম নিয়েছিল একটা আদর্শ নিয়ে

জুড়ী টাইমস সংবাদ: গত ৪৬ বছরের আন্তর্জাতিক মহল বাংলাদেশের অর্থনীতি নিয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করেছিল। পরিত্যাগ করেছিল। আশা-ভরসা ও ভবিষ্যৎ আছে বলে মনে করেনি। এখন তারা বলছে বাংলাদেশ উন্নয়নের বিস্ময়। সবচেয়ে দ্রুত গতিতে বিকাশমান ও সামাজিক অগ্রগতির দেশ বাংলাদেশ। স্বাধীনতার ৪৬ বছর নিয়ে আলাপকালে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও অর্থনীতিবিদ ড. মোহাম্মদ ফরাস উদ্দিন এসব তথ্য জানান। 

তিনি বলেন, এসব উন্নয়নের কারণ হলো বাংলাদেশ জন্ম নিয়েছিল একটা আদর্শ নিয়ে। আদর্শটা হলো- কেউ গরিব থাকবে না। বঞ্চনা থাকবে না। সবাইকে একসঙ্গে নিয়ে বড় হতে হবে। মানুষ সেই আদর্শ নিয়ে কাজকর্ম করেছে। ভালো নেতৃত্ব পেয়েছে। কল্যাণ প্রতিষ্ঠার কারণেই বাংলাদেশ এতদূর এগিয়েছে। 

এক হাজার কোটি টাকার কম বার্ষিক বাজেট নিয়ে যাত্রা শুরু বাংলাদেশর। সেই বাজেটের বড় অংশেরই জোগান আসতো বিদেশি ঋণ থেকে। সময়ের পরিবর্তনে এখন বাংলাদেশের বাজেটের আকার ছাড়িয়েছে ৪ লাখ কোটি টাকা। বেড়েছে রাজস্ব আদায়, বেড়েছে নিজস্ব উৎস থেকে অর্থ সংস্থানের পরিমাণ। 

ফরাস উদ্দিনের বলেন, বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের মাথাপিছু আয় আমাদের চেয়ে বেশি হলেও বাংলাদেশের সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে অগ্রগতি অনেক ভালো। এছাড়া পাকিস্তানের বেশকিছু সূচকে বাংলাদেশ টপকিয়ে গেছে। শুধু শ্রীলঙ্কার ক্ষেত্রে আমরা কিছুটা পিছিয়ে আছি। আর বাকি দেশগুলোর তুলনায় আমরা মোটামুটি ভালো করছি। 

বাংলাদেশ বাংককের সাবেক গভর্নর বলেন, বাংলাদেশে অবকাঠামোর ক্ষেত্রে ব্যাপকহারে উন্নয়ন হয়েছে। এ খাতে বিশাল বিনিয়োগ হয়েছে। অগ্রগতি হয়েছে। যেহেতু বাজার অর্থনীতির মাধ্যমে আমরা এখন অগ্রসরমান। তাই এলডিসি থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হয়েছি। বিনিয়োগ অনেক বেশি বেড়েছে। আগামী কয়েক বছরে বাংলাদেশ ২৩তম অর্থনীতির দেশ হবে। ইউরোপের তিন দেশ বাদে বাকি দেশগুলোকে বাংলাদেশ অতিক্রম করবে। জেন্ডার বৈষম্য কমেছে। আমাদের অবস্থান ৪৭তম। 

এক প্রশ্নের জবাবে ফরাস উদ্দিন বলেন, চলতি বছরটা অর্থনৈতিকভাবে কোনো ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। কারণ রাজনৈতিকভাবে পরিবেশ স্থিতিশীল বা শান্ত ছিল। আগামী বছর নির্বাচনের বছর। আশা করা যায়, নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে হবে। আর যদি ২০১৩-১৪ সালের মতো সংঘাময় হয় তাহলে অগ্রগতি ব্যাহত হবে। আর ব্যাংকিং খাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণটা শক্তিশালী করতে হবে। তাহলে আর্থিক খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হবে বলে তিনি মনে করেন। তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর মাঝখানে এসে সামাজিক বৈষম্য কমে আবার বেড়েছে। বিশেষ করে গত ৯ বছর যাবত সামাজিক নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টি করে একে আয়ত্তের মধ্যে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু আরো বেশি কিছু দরকার বলে মনে করেন এই অর্থনীতিবিদ। 

ফরাস উদ্দিন ১৯৪২ সালে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর জন্মগ্রহণ করেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভিসি। পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থায় জড়িত আছেন। এছাড়া অর্থনীতি, শিক্ষা, সামাজিক কর্মকাণ্ড ও জাতীয় নীতি নির্ধারণে বিশেষ ভূমিকা রেখে চলেছেন হবিগঞ্জের এই কৃতী সন্তান।

No comments: