অর্ধশতাধিক পৌরসভা ও ইউপিতে ভোট ২৮ ডিসেম্বর, তফসিল ঘোষণা ১২ নভেম্বর; বেশ কয়েকজন জনপ্রতিনিধির দীর্ঘ শাসনামলের অবসান হতে যাচ্ছে

জুড়ী টাইমস সংবাদ: দেশের অর্ধশতাধিক পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদে আগামী ২৮ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ১২ নভেম্বর এসব পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ সংক্রান্ত ফাইল অনুমোদন করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে। 

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ মঙ্গলবার বলেন, নির্বাচন উপযোগী পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে আগামী ২৮ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ করা হবে। ইসির সংশ্লিষ্টরা জানান, নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত যেসব পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ ভোট গ্রহণের উপযোগী হবে সেগুলোতে ডিসেম্বরে ভোট হবে। ইতিমধ্যে এমন অর্ধশতাধিক পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের তালিকা তৈরি করেছে কমিশন। এর মধ্যে বেশকিছু নবগঠিত পৌরসভা ও ইউপি রয়েছে যেগুলোতে প্রথমবারের মতো ভোট হতে যাচ্ছে। কয়েকটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় সাধারণ নির্বাচন হবে। তারা আরও জানান, বাকিগুলোতে সীমানা পুনর্নির্ধারণ, আইনগত জটিলতা, ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাসসহ নানা জটিলতায় দীর্ঘদিন ভোট হয়নি। সেগুলোতেও নির্বাচন হবে। এর ফলে বছরের পর বছর পদ আঁকড়ে থাকা এসব পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিদের শাসনের অবসান হতে যাচ্ছে। নির্বাচন উপযোগী পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদগুলোর তফসিল ঘোষণা করা হবে ১২ নভেম্বর। তফসিল ঘোষণা সংক্রান্ত ফাইল মঙ্গলবার ইসি অনুমোদন করেছে। 

জানা গেছে, ১৭৫টি ইউনিয়ন ও ৩৫টি পৌরসভার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও নানা জটিলতায় বছরের পর বছর ভোট গ্রহণ হয়নি। বিষয়টি নিয়ে গত ৩ অক্টোবর ইসি সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ ও অ্যাটর্নি জেনারেল দফতরের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ৪৩ ইউনিয়ন পরিষদ এবং ১৩টি পৌরসভা নির্বাচন উপযোগী রয়েছে। এগুলোতে ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাস করা হলেই নির্বাচন করা যাবে। সম্প্রতি এসব ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভায় আগামী ২০-২৩ ডিসেম্বর এবং ২৭-৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে ভোট গ্রহণের প্রস্তাব করে কমিশন সচিবালয়। কমিশন এসব ইউপি ও পৌরসভায় আগামী ২৮ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করেছে। 

সংশ্লিষ্টরা জানান, নভেম্বরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরীক্ষা শুরু হয়ে চলবে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত। এ বিষয়টি বিবেচনায় রেখে ২৮ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ বিষয়ে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, অনেক ইউপি ও পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে মামলা, সীমানা নির্ধারণ ও ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাস না হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে নির্বাচন হয় না। এগুলো স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের আওতাভুক্ত হলেও নির্বাচন না হওয়ার জন্য সাধারণ মানুষ ইসিকে দোষারোপ করে। তাই আমরা এসব সমস্যা নিরসনে বৈঠক করেছি। তিনি বলেন, নভেম্বরে তফসিল ঘোষণার আগ পর্যন্ত যেসব পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচন উপযোগী হবে, সব কটিরই নির্বাচন করে ফেলব। 

যে ১২ পৌরসভায় ডিসেম্বরে ভোট হতে যাচ্ছে : ২৮ ডিসেম্বর ১২টি পৌরসভায় ভোট গ্রহণের লক্ষ্যে ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাসের তথ্য সংক্রান্ত ইউনোট দিয়েছেন ইসির সহকারী সচিব মোশাররফ হোসেন। তালিকায় দেখা গেছে, নির্বাচন উপযোগী পৌরসভাগুলো হচ্ছে : ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট, নাটোরের বনপাড়া, চট্টগ্রামের নাজিরহাট, জামালপুরের বকশীগঞ্জ, ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা ও মধুখালী, রাজশাহীর বাঘা, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া, পঞ্চগড়ের বোদা ও দেবীগঞ্জ, দিনাজপুরের বিরল এবং নাটোরের বনপাড়া। 

যেসব ইউপিতে ভোট হতে যাচ্ছে : জানা গেছে, অন্তত ৪৩টি ইউনিয়ন পরিষদ আগামী ২৮ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণের উপযোগী রয়েছে। এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। এর মধ্যে ২০টির ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাসের জন্য অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার তিনটি ও নাঙ্গলকোট উপজেলার ৮টি ইউপি রয়েছে। এ ছাড়া ভোলার লালমোহনে দুটি, নোয়াখালীর সদরে দুটি, লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে একটি, শরীয়তপুরের জাজিরায় তিনটি এবং মৌলভীবাজারের জুড়ীতে একটি ইউনিয়ন রয়েছে। এ ছাড়া আরও ২৫টির ভোটার তালিকা তৈরির মাঠপর্যায়ের কাজ শেষ হয়েছে। তফসিল ঘোষণার আগে এসব ইউনিয়নের ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাস করে নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার আটটি, চুয়াডাঙ্গার তিনটি, লক্ষ্মীপুরের একটি, হবিগঞ্জের দুটি ও ফরিদপুরের ১১টি ইউনিয়ন রয়েছে।

No comments: