চার লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর মধ্যে ৬০ শতাংশই শিশু

জুড়ী টা্ইমস সংবাদ: মিয়ানমারে ২৫ আগস্ট সর্বশেষ সহিংসতা শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত আনুমানিক চার লাখ রোহিঙ্গা তাদের বাড়িঘর থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে বলে জানিয়েছে ইউনাইটেড ন্যাশনস চিলড্রেন ফান্ড (ইউনিসেফ)। সংস্থাটি বলছে, এর মধ্যে প্রায় ৬০ শতাংশই শিশু। 
 
বৃহস্পতিবার কক্সবাজার থেকে ইউনিসেফের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘২৫ আগস্ট থেকে এখন পর্যন্ত চার লাখের মতো রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এখনো প্রতিদিন হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করছে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, শরণার্থীদের মধ্যে প্রায় ৬০ শতাংশই শিশু। আগে থেকে আশ্রয় নেওয়া শরণার্থী শিবিরগুলোতে নতুন করে আসা এই বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গার স্থান সংকুলান না হওয়ায় তারা যেখানেই জায়গা পাচ্ছে সেখানেই আশ্রয় নিচ্ছে।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া হাজার হাজার রোহিঙ্গা শিশুর জন্য জরুরি ভিত্তিতে বিশুদ্ধ পানি, স্যানিটেশন, ওষুধপত্র ও চিকিৎসা সামগ্রীবাহী ট্রাকগুলো কক্সবাজারের দিকে আসছে। আগামী দিনগুলোতে আরো ত্রাণ সামগ্রী আসবে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউনিসেফ প্রতিনিধি অ্যাডুয়ার্ড বিগবেডার বলেন, শরণার্থীদের জন্য বিশেষত: জরুরি ভিত্তিতে আশ্রয়, খাবার ও বিশুদ্ধ পানিসহ সবকিছুরই প্রয়োজন রয়েছে। শিশুরা সেখানে পানিবাহিত রোগের ব্যাপক ঝুঁকিতে রয়েছে। এই মুহূর্তে চরম ঝুঁকিপূর্ণ এই শিশুদের রক্ষা করাই আমাদের প্রধান কাজ।

ইউনিসেফ শিশুদের জন্য ডিটারজেন্ট পাউডার, সাবান, পানি রাখার জন্য কলস, জগ, ডায়াপার, স্যানিটারি ন্যাপকিন, তোয়ালে এবং স্যান্ডেল সরবরাহ করছে। এছাড়া সংস্থাটি বাংলাদেশ সরকারের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরকে পানি বিশুদ্ধকরণ ও তা সরবরাহ করা এবং বিভিন্ন সহযোগী সংস্থার সঙ্গে মিলে টিউবওয়েল স্থাপনের কাজ করছে।

অ্যাডুয়ার্ড বলেন, এই ত্রাণ সামগ্রীগুলো বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ক্রমবর্ধমান রোহিঙ্গা শিশুদের জন্য ইউনিসেফের পক্ষ থেকে প্রথম দফার জরুরি সহায়তা।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শিশুদের সহায়তার জন্য ইউনিসেফ আগামী ৪ মাসে দাতা দেশগুলোর কাছে ৭৩ লাখ মার্কিন ডলার সহায়তা চেয়েছে।

No comments: