“জুড়ী মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়”; আমাদের আলোর দ্বীপশিখা

জুবায়ের হাসান প্যারিস থেকে: মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলা সদরের প্রাচীনতম আমাদের প্রাণের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জুড়ী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় জাতীয়করণ হওয়ায় সর্বশক্তিমান মাবুদের শোকরিয়া আদায় করছি। এই স্কুলের একজন ছাত্র হিসেবে এটা আমার জন্য অত্যন্ত গর্বের-আনন্দের। জাতীয়করনের ঘোষিত তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হতে যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ধন্যবাদ জানাচ্ছি জুড়ী-বড়লেখার সাংসদ মাননীয় হুইপ মহোদয়, মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী সহ সংশ্লিস্ট সবাইকে। স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি, শিক্ষকমণ্ডলী সাবেক-বর্তমান ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ সবাইকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।

শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি, এই বিদ্যালয়ের ভূমিদাতা ও তাদের পরিবারবর্গ কে, ১৯৭০ সালের নির্বাচনে সিলেট-১২ আসনে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য মরহুম তৈমুছ আলী (এম.পি), বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সফল সভাপতি মরহুম আলহাজ্ব এম এ মুমিত আসুক ভাই, সদস্য নুরুল ইসলাম (ফয়েজ ভাই) সহ বিদ্যালয় আজকের অবস্থানে আসতে যারা তাদের সাধ্য কে উজাড় করে দিয়েছেন তাদের রুহের মাগফেরাত কামনা করছি। 

১৯৩০ সালে প্রতিষ্ঠিত এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রজন্মের পর প্রজন্মে শিক্ষার আলো জ্বালিয়ে চলেছে। একটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঐ এলাকার মানুষের মান মর্যাদা বৃদ্ধি করে, মানুষ যখন মনে করে 'আমাদের ইশকুল' সাফল্যের জন্য আর ফিরে তাকাতে হয় না। জুড়ী মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, তাই জুড়ীর মানুষের অহংকার। ৮৭ বছরের দীর্ঘ অভিযাত্রায় ঐতিহ্যবাহী এ স্কুলের সাবেক অনেক ছাত্র-ছাত্রী এ স্কুল থেকে শিক্ষাগ্রহন করে সেবার ব্রত নিয়ে দেশ-বিদেশে মেধা-যোগ্যতায় অনেক বড় বড় পদে অধিস্ঠিত আছেন। 

প্রশ্ন আছে বিদ্যালয়ের বর্তমান পড়ালেখার মান ও ফলাফল নিয়ে, এটা সত্য। কথা হচ্ছে, তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আর পুরনো কাঠামোতে নেই। সৃজনশীল প্রশ্ন কাঠামোতে ভালো ফলাফলের জন্য স্কুলে মানসম্মত শিক্ষক নিয়োগ দরকার, দরকার দক্ষ ম্যানেজিং কমিটির নজরদারি এবং শিক্ষার মান উন্নয়নে শিক্ষার্থী-শিক্ষকদের সমন্বিত উদ্যোগ। নিয়মিত পাঠদানে খালি খন্ডকালীন শিক্ষক নিয়োগে সংকটের সমাধান হতে পারে না। প্রয়োজন পূর্ন মেয়াদের জন্য অভিজ্ঞ শিক্ষক নিয়োগ। এই স্কুলের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র হিসেবে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আমার অনুরোধ থাকবে, বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশেষ যত্নে পাঠদান এবং ল্যাবরেটরি কে সমৃদ্ধ করার। আশাকরি এসব সংকট অচিরেই দুর হবে। 

জাতীয়করন হলেই একটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সব সাফল্য অর্জিত হয়ে যায় না। তাতে সংশ্লিষ্ঠ সবার আরও বেশী দায়িত্ব বাড়ে, বাড়ে প্রতিযোগীতাও। আশাকরি সবার পরিশ্রম ও ভালোবাসায় আমাদের প্রিয় জুড়ী মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় গোটা বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয়ে পরিনত হবে একদিন। দেশ-বিদেশের সাবেক-বর্তমান সব শিক্ষার্থীদের প্রতি আন্তরিক মোবারকবাদ রইলো। ভালো হোক সবার। 

No comments: