আগামী বছরের মধ্যে সারাদেশে নির্মিত হবে সাড়ে ১৯ হাজার স্কুল ভবন : শিক্ষামন্ত্রী

বিশেষ প্রতিনিধি: শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জানিয়েছেন, আগামী বছরের মধ্যে সারাদেশে সাড়ে ১৯ হাজার স্কুল ভবন নির্মিত হবে। উপজেলা পর্যায়ে চারতলা, জেলা পর্যায়ে আটতলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে দশতলা ভবন হবে। গতকাল শুক্রবার ঢাকায় পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা-২০১৬-তে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সদস্যদের কৃতী সন্তানদের সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান। ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশার সভাপতিত্বে সাগর-রুনী মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা টাইমস ২৪ ডটকমের সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহসভাপতি আবু দারদা জোবায়ের, সাধারণ সম্পাদক মোরসালিন নোমানী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি শাবান মাহমুদ, অভিভাবক শাহনেওয়াজ দুলাল, সুরাইয়া মুন্নী, সাবিনা ইয়াসমিন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে সাবরিনা নুজহাত প্রমুখ।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসব ভবন উন্নত হবে, পানি থাকবে, টয়লেট থাকবে, প্রতিবন্ধীদের জন্য আলাদা সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা থাকবে। ভবনগুলোতে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা হবে। তিনি বলেন, আমরা এ পর্যন্ত ৯৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ শিশুকে স্কুলে নাম লেখাতে পেরেছি, এ বছর ৩৬ কোটির বেশি বই দিয়েছি। আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি। যার পূর্বশর্ত হচ্ছে গুণগত মানের শিক্ষক।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের এমন কিছু শিক্ষক আছেন যারা গোটা জগতের শিক্ষকদের নাম নষ্ট করছেন। তারা স্কুলে না পড়িয়ে বাসায় পড়াচ্ছেন। আবার টাকার বিনিময়ে পরীক্ষার হলে শিক্ষার্থীকে প্রশ্নের উত্তর বলে দিচ্ছেন। যারা এখনো এ ধরনের কাজ করছেন তারা আর এ পেশায় থাকতে পারবেন না। তবে অনেক বাবা আবার সন্তানকে প্রশ্ন এনে দেন। এই প্রবণতাও বন্ধ করতে হবে, বাবা-মাকে সচেতন করতে হবে। এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

নতুন প্রজন্ম আগামী দিনের ভবিষ্যৎ উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের গতানুগতিক শিক্ষা দিয়ে আধুনিক উন্নত রাষ্ট্র গঠন করা যাবে না। এটাও ঠিক যে, রাতারাতি এটা পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। তবে আমরা প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষার মাধ্যমে আমাদের ছেলেমেয়েদের তৈরি করতে চেষ্টা করে যাচ্ছি।

২০১৬ সালে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষায় ভালো ফলাফলকারী ২৭ জন, জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় কৃতিত্ব অর্জনকারী ১৮ জনকে সংবর্ধনা ও বৃত্তি দেয়া হয়েছে। কৃতী শিক্ষার্থীরা সবাই নগদ দুই হাজার টাকা বৃত্তি, সনদপত্র, একটি সম্মাননা ক্রেস্ট এবং বই উপহার পেয়েছে।

জেএসসিতে যারা সংবর্ধনা ও বৃত্তি পেল : খোন্দকার কাওছার হোসেনের মেয়ে কান্তা মাহজাবিন, শাহ মোহাম্মদ মনোয়ার জাহান কবিরের মেয়ে মালিহা মরিয়ম এশা, তারিক আল বান্নার ছেলে শেখ রফিক বিন তারিক, মাইনুল আলমের মেয়ে সাবরিনা নুজহাত, মিজানুর রহমানের ছেলে আরাফাত রহমান, শাহাদত হোসেন নিজামের ছেলে আবির শাহাদাত পুরব, মাহমুদ হাসানের মেয়ে মাফি মাফরুহিন হাসান, মো. শহিদুল আলমের মেয়ে সায়মা খাতুন, জিয়াউদ্দিন ভূঁইয়ার মেয়ে আনিকা বুশরা, সুরাইয়া মুন্নির মেয়ে সিন্থাহিনা অপ্সরা, রাইহান আল মুঘনির মেয়ে মুমতাহিনা শ্যামা, মো. বদিউজ্জামানের ছেলে এম মহিউজ্জামান শাওন, নাজমুল আহমেদ তওফিকের মেয়ে রাফিজা তওফিক রাকা, নাঈম উল করিমের ছেলে জুলকার নাঈন করিম, মো. রেজাউর রহিমের ছেলে মোহসিন রেজা, এইচ এম জামাল উদ্দিনের মেয়ে ওসিন বিনতে জামাল, কাজী হাফিজুর রহমানের ছেলে কাজী আসিফুর রহমান, কাজী ইমরুল কবির সুমনের মেয়ে কাজী আবিদা ফাতেমা।

পিইসিতে যারা সংবর্ধনা ও বৃত্তি পেল : মো. শফিকুল ইসলামের মেয়ে সাদিয়া ইসলাম সিফা, মো. কামাল হোসেন তালুকদারের ছেলে মিনহাজ তালুকদার, মিজানুর রহমানের ছেলে জিন্নাহ মাহমুদ, নাজমুল হক তপনের মেয়ে ফিকাহ ফেরদৌস সঞ্চারী, মো. মোহসিন হোসেনের ছেলে সাইফুল্লাহ সিফাত, মো. বদরুল আলম চৌধুরীর মেয়ে আবিদা আলম, জিয়াউদ্দিন ভূঁইয়ার ছেলে ফাহিম বখতিয়ার, মো. ফজলুল হকের মেয়ে নুর ইয়াদ তারান্নুম স্বপ্নীল, শাহনেওয়াজ দুলালের ছেলে রাইয়ান নেওয়াজ, মো. সাব্বির হোসাইনের ছেলে আহমেদ হোসাইন নাসিফ, কে এম আলফাজ এনামের মেয়ে আনিকা নাওয়ার, মো. হারুনুর রশিদের মেয়ে মুমতাহিনা মেহেরিন নুহা, লুৎফুর রহমানের মেয়ে জাফিরাহ বিনতে রাহমান, মো. জয়নাল আবেদীনের ছেলে মোহাম্মদ মিশকাত আবেদীন, সাগর বিশ্বাসের মেয়ে সাগনিক বিশ্বাস, মনিরুজ্জামান উজ্জলের ছেলে সাদ্দাম সাকিবুজ্জামান তাহফিন, সালাউদ্দিন আহমাদ বাবলুর মেয়ে লামিয়া মেহেরীন, এম এম কায়সারের ছেলে তেহজিব কায়সার, মো. আমিনুল ইসলামের মেয়ে তাইয়াবা ইসলাম তাবাস্সুম, মো. আমিনুল ইসলাম মির্জার ছেলে আরিয়ান মির্জা, বিকাশ নারায়ণ দত্তের ছেলে বিস্ময় অর্ঘ দত্ত, মেহেদী হাসান পলাশের ছেলে হাসান সায়ের পলক, মো. আনোয়ারুল হকের ছেলে অনন্য আজিজ নিবিড়, শাবান মাহমুদের ছেলে রোদ্দুর মাহমুদ, সাহেদ সিদ্দিকের ছেলে ফারহান তানভীর সিদ্দিক, ওমর ফারুকের মেয়ে দীপাকা ওমর দিয়া, এস এম জাহাঙ্গীরের ছেলে ইনতিজার আহমেদ।

No comments: