আকাশ সংস্কৃতিতে যা ক্ষতিকর তা বর্জন করুন

জুড়ী টাইমস সংবাদ: দেশের সংস্কৃতির সাথে যা সামঞ্জস্যপূর্ণ তা গ্রহণ এবং যা মন্দ ও দেশের সংস্কৃতির পরিপন্থী তা বর্জন করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত শিল্পকলা পদক-২০১৬ বিতরণ অনুষ্ঠানে এই আহ্বান জানান তিনি। রাষ্ট্রপতি বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির (আইসিটি) যুগে আকাশ সংস্কৃতি এখন বাস্তবতা, কিন্তু জনগণ ও সংস্কৃতিকর্মীদের ভালো জিনিস গ্রহণ এবং যা মন্দ ও দেশের জন্য ক্ষতিকর, তা বর্জন করতে হবে।

তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে বিশেষ করে সংস্কৃতিকর্মীদের আকাশ সংস্কৃতির মাধ্যমে দেশের সুদীর্ঘ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও লোকগাঁথা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, সৃজনশীল বাংলাদেশ নির্মাণ ও দেশের লোকসাহিত্য ও ঐতিহ্য বিকাশে শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন। ‘সংস্কৃতি হচ্ছে জীবনের দর্পণ, শিল্প ও সংস্কৃতি হচ্ছে একটি দেশ ও জাতির প্রতিবিম্ব’ এ কথা উল্লেখ করে তিনি জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে শিল্প ও সংস্কৃতি চর্চার প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, শিল্প ও সংস্কৃতি যুব সমাজের মধ্যে শৃঙ্খলা, জাতীয়তাবোধ, দেশপ্রেমের চেতনা বিকাশসহ সাংস্কৃতির ঐতিহ্যের চেতনা জাগিয়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধসহ জাতির বিভিন্ন ক্রান্তিলগ্নে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে তিনি বলেন, একজন সফল সংস্কৃতিকর্মী ভ্রাম্যমাণ কূটনীতিকের মতো এবং তিনি তার দীপ্ত উপস্থিতি, প্রতিভা ও কর্ম দিয়ে দেশ ও জাতিকে বিশ্বসভায় আপন মহিমায় তুলে ধরতে পারেন।
বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রমের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘জঙ্গি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম বিশ্ববাসীকে ভাবিয়ে তুলছে, কিন্তু কোনো ধর্মই জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস সমর্থন করে না।’

তিনি সবাইকে শিশু, কিশোর ও যুবকদের মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান জানান, যাতে তারা ধর্মান্ধতা, সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিষবাষ্প থেকে দূরে থাকতে পারে।

রাষ্ট্রপতি সাতটি বিষয়ে সাতজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বের মাঝে শিল্পকলা পদক বিতরণ করেন। তারা হলেন- পবিত্র মোহন দে (যন্ত্রসংগীত), মো. গোলাম মোস্তফা খান (নৃত্যকলা), গোলাম মুস্তাফা (ফটোগ্রাফি), কালিদাস কর্মকার (চারুকলা), সিরাজ উদ্দিন খান পাঠান (লোক সংস্কৃতি), সৈয়দ জামিল আহমেদ (নাট্যকলা) ও মিতা হক (কণ্ঠসংগীত)।

পদক বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আপনারা সেলিব্রেটি, তারকা ও আইডল, সাধারণ মানুষ, বিশেষত তরুণ সমাজ আপনাদের অনুকরণ করতে পছন্দ করে। তাই তাদের প্রতি আপনাদেরও দায়বদ্ধতা রয়েছে।’
তিনি পদকপ্রাপ্তদের কর্মে দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরার পাশাপাশি দুর্নীতি প্রতিরোধ, সুশাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা, ধর্মীয় মূল্যবোধসহ বিরাজমান সামাজিক সমস্যা তুলে ধরার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সংস্কৃতি বিষয়ক সচিব মো. ইব্রাহীম হোসেন খান ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী বক্তব্য রাখেন।

No comments: