মায়া কান্না !

শেখরুল ইসলাম:  আপনি যদি কোন আড্ডায় বলেন ঐ লোকটা খুব সৎ, আর মানবিক। দেখবেন আশপাশের মানুষের সেটা শোনার আগ্রহ নেই। তারা এই গল্প গিয়ে আরেকজনকে বলবেও না। কিন্তু আপনি যদি একই আড্ডায় বলেন ঐ লোকটা ( আরেকজন কে) একটা ঘুষঘোর। পরের টাকা মেরে টাকা ওয়ালা, দেখবেন যে লোক তাকে চেনে না সেও বলবে আগে থেকেই আমি সন্দেহ করছি। দেখবেন আড্ডার এই গল্প ছড়িয়ে পড়বে দ্রুত। কারণ আমরা ভালো কথার চেয়ে গীবতে বেশি বিশ্বাস করি। 

না আমি বলতে চাচ্ছি না সব মানুষ খারাপ। তবে ইহা সত্য বটে খারাপ মানুষের সংখ্যাটাই বেশী। সাধারণ মানুষ নানা কার‌ণেই তা‌দের ওপর ক্ষুব্ধ, হতাশ। কিন্তু সেই খারাপের ভীড়েও কিছু মানুষ থাকে যারা আসলে সৎ মানবিক জীবনযাপন করে, মিডিয়া ব্যাক্তিত্বের মাঝেও খারাপের মাঝে কিছু সবসময় মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করে। অনিয়মের প্রতিবাদ করে। বাস্থব প্রতিপলন হচ্ছে এমন অনেক সময় অনিয়ম যারা করে প্রতিবাদের ধরুন চামচাদের গাঁয়ে লাগে। ঐ সু্বিধাবাদীরা লেগে যায় ঐ ব্যাক্তিত্ব কিংবা ভালো কাঁজ টা কিভাবে বিতর্কিত করা যায় সেই ধান্ধায়। কিন্তু আমি সব সময় কর্মক্ষেত্রে সৎ, ব্যক্তিগত জীবনে সাধারন মানুষ কে সব সময় অা‌মি শ্রদ্ধা ক‌রি, ভালোবাসি, তা‌দের কথা অনেকটা অহংকারের সাথে সবাই‌কে ব‌লি। যদি ঐ গল্প শোনে অন্য একটা মানুষ ঠিক হয়। প্রকৃত সত্য ঘু‌নে ধরা এই সমাজে এরা যে আলোকবর্তিকা। অামার চোখে এ রকম অনেকেই পড়ে।

জুড়ী বড়লেখার উন্নয়নের রুপকার মহান জাতীয় সংসদের মাননীয় হুইপ আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন এমপি ব্যক্তিগত জীবনে কতোটা সৎ, কতোটা সুন্দর জীবনযাপন সাধারন ভাবে জীবন যাপন ক‌রেন অা‌মি খুব ভা‌লো ক‌রেই জা‌নি। বছরের পর বছর মাসের পর মাস দ‌ি‌নের পর দিন অা‌মি নেতার সঙ্গে ছিলাম, দুর্দিনে সুসময়ে, সা‌থে মিছিল, মিটিং করেছি। আজ জুড়ীর অনেকেরই মায়া কান্না, তখন ওরাই বলতো...? অনেকে লিখছে ফেবুতে সব একসাথে খুব ভালো দিন যাচ্ছে। খন্দকার মোসতাক বন্ধবন্ধুর খুব কাঁছাকাঁছি ছিল। অনেক সময় কাঁছের ভালোবাসাটাও সঠিক থাকে না।স্পর্টভাষায় বলছি সব সময় আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন এমপির সাথে ছিলাম তিনি নেতৃত্ব থাকা পর্যন্ত রাজনীতিতে থাকা পর্যন্ত তিনির সাথেই থাকবো, আপনাদের মতো সকালে নেতা আর বিকালে......? শাহাব উদ্দিন ভাই কে শ্রদ্বা করি অনেক।কারণ অা‌মি এ প্রজম্মের একজন হয়ে যে বাংলা‌দে‌শের স্বপ্ন দে‌খি সেই বাংলা‌দে‌শের জন্য লড়‌ছেন শেখ হাসিনার সঙ্গী থেকে এই নেতা, গ্রাম থেকে গ্রামান্তর ছুটছেন অবিরাম। উৎসাহ থেকে ব্যাক্তি উদ্দোগে,নিজেরা নিজ ইউনিয়নে যাচ্ছি সাধারন মানুষের ধারে ধারে। আমার অপরাধ একটা মারাত্নক শাহাব উদ্দিনের ভাইয়ের প্রোগামের দিন সাদা পাঞ্জাবী, ভালো টিসার্ট পরে মুখ দেখানোর রাজনীতি করতে পারি না। তবে প্রয়োজনের পরীক্ষায় উর্ক্তীন হতে পারার সর্বচ্চ চেষ্টা করি।

অা‌মি ম‌নে ক‌রি, অামি বিশ্বাস ক‌রি ন্যা‌য়ের লড়াই‌য়ে কেউ কখ‌নো পরা‌জিত হয় না। কা‌জেই মৌসুমী কোকিলের কাঁছে, মৌসুমী টাকাওয়ালের কাঁছে অাপ‌নিও হার‌বেন না। ভয় তাড়ায় সারাক্ষন নিজ দলের কুচক্রি অতি উৎসাহীরা কি কোন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এ বিষয়টি খুব গুরুত্ব দিতে হবে।

অা‌মি খুব সাধারণ মানুষ। আপনার রাজনৈতিক ছায়াতলের ঐ ঈশান কোনের এক নগন্য কর্মী। কিন্তু আপনার খুব ভালো শুভাকাংখী। অা‌মি শুধু একটা কথাই অাপনা‌কে দিতে পা‌রি পা‌শে ছিলাম, আছি যত কঠিন মুহুত হোক পাশে থাকবো। লড়াইটা চা‌লি‌য়ে যান। .......শুভ কামনা সবসময়......।

লেখক: শেখরুল ইসলাম, সাবেক সভাপতি, উপজেলা ছাত্রলীগ, জুড়ী-মৌলভীবাজার।

No comments: