জুড়ীতে পাহাড়ি ঢলে ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দী

জুড়ী টাইমস সংবাদ: অতিবৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার সদর জায়ফরনগর, গোয়ালবাড়ী, সাগরনাল ও ফুলতলা ইউনিয়নের ২০টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। জুড়ী-লাঠিটিলা ও জুড়ী-ফুলতলা সড়কের বিভিন্ন স্থানে পানি ওঠায় ওই দুটি পথে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে। এদিকে বৃষ্টিতে টিলা ধসে জায়ফরনগর ইউনিয়নের গুচ্ছগ্রাম ও মনতৈল এলাকায় কয়েকটি বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, কয়েক দিন ধরে বৃষ্টি হচ্ছে। এর ফলে উজান থেকে নামা পাহাড়ি ঢলে গত সোমবার থেকে গ্রামগুলো প্লাবিত হয়। সরেজমিনে আজ দুপুরে দেখা গেছে, জুড়ী-ফুলতলা সড়কের রানীমোড়া ও হাফিজি বড়ডহর এবং জুড়ী-লাঠিটিলা সড়কের নয়াবাজার এলাকায় দু-তিন ফুট পানি। রানীমোড়া এলাকা থেকে কাপনাপাহাড় চা-বাগান চৌমোহনা এলাকায় মাথাপিছু ২০ টাকা ভাড়ায় নৌকায় লোকজনকে পারাপার করা হচ্ছে। ঘরে পানি উঠায় রানীমোড়ায় কয়েকটি বাড়িতে খাটের ​ওপর টিনের চুলা স্থাপন করে ইফতারি তৈরি করতে দেখা যায়।

এলাকার বাসিন্দা দিনমজুর বাবুল হোসেন (৪০) বলেন, ‘চাইর দিকে পানি উঠায় কামে যাইতে পারছি না। ঘরো বসি আছি।’
কাপনাপাহাড় চা-বাগানের ব্যবস্থাপক কামরুল হাসান বলেন, বাড়িঘরে পানি ওঠায় বাগানের বাংলাটিলা লাইনের দেড় শ শ্রমিক পরিবার উঁচু টিলায় আশ্রয় নিয়েছে। বন্যাপ্লাবিত এলাকা থেকে নৌকায় করে চায়ের কচি পাতা পরিবহন করা হচ্ছে।

জায়ফরনগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মাছুম রেজা বলেন, চারটি গ্রামের পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে। মনতৈল ও গুচ্ছগ্রামে টিলা ধসে সাত-আটটি বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

গোয়ালবাড়ী ইউপির চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন আহমদ, ফুলতলার ইউপি চেয়ারম্যান ফয়াজ আলী ও সাগরনালের ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম চৌধুরী মুঠোফোনে বলেন, তাঁদের এলাকার অন্তত পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দী। 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেবল সরকার বলেন, পাহাড়ি ঢলে প্রায় ৬২০ একর জমির আউশ ধান ও প্রায় ৭৫ একর জমির সবজি তলিয়ে গেছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিন্টু চৌধুরী বিকেল পাঁচটার দিকে বলেন, বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসনের ত্রাণ শাখা থেকে ৫ মেট্রিক টন চাল ও নগদ ২০ হাজার টাকা পাওয়া গেছে। সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় ফুলতলা ও সাগরনালে ত্রাণ পাঠানো যাচ্ছে না। গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের মন্ত্রীগাঁও এলাকায় কিছু চাল বিতরণ করা হয়েছে।

No comments: