যে কারণে মৌলভীবাজারে গড়ে উঠেছে জঙ্গি আস্তানা

আব্দুর রব: সম্প্রতি বৃহত্তর সিলেট বিভাগজুড়ে জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এরই মধ্যে সিলেটের আতিয়া মহল, মৌলভীবাজারের নাসিরপুর ও বড়হাটে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান মেলে কীভাবে প্রবাসী অধ্যুষিত মৌলভীবাজারকে জঙ্গিরা তাদের নিরাপদ ঘাঁটি বানাচ্ছে এ নিয়ে দেশে-বিদেশে অবস্থানরত মৌলভীবাজারবাসীদের মধ্যে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। 

অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে অনেক তথ্য। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তথ্য অনুযায়ী জঙ্গিরা তাদের নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে বেছে নিয়েছিল সিলেট অঞ্চলকে। সেখান থেকে তারা দেশব্যাপী কার্যক্রম পরিচালনা করত। সিলেটের আতিয়া মহলে সেনাবাহিনীর অভিযান চলাকালে সেখানে গিয়ে বিস্ফোরণ ঘটায় মৌলভীবাজারের বড়হাট আস্তানার জঙ্গিরা। শুধু তাই নয়, তারা নিরাপদে আস্তানায় ফিরে আসে বলেও জানান, সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম। 

তাহলে কি জঙ্গিরা পরিকল্পিত আস্তানা করেছিল সিলেট বিভাগে? কেন তারা সিলেটকে বেছে নিল? অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ৩৬০ আউলিয়ার পুণ্যভূমি সিলেটের মানুষের ধর্মের প্রতি অনুরাগ রয়েছে। ধর্মের কথা বলে তাদের সহজে প্রভাবিত করা যায়। জঙ্গিরা খুবই শান্তশিষ্ট ব্যবহার করে, মানুষজনের সঙ্গে কথা কম বলে। যার কারণে সেখানকার সহজ-সরল মানুষ তাদের সহজে বিশ্বাস করে ফেলেন। আর ওই সুযোগে তারা ছদ্মবেশে সহজে বাসাবাড়িগুলোতে আশ্রয় নিতে পারে। 

এছাড়া শান্তিপ্রিয় পর্যটন এলাকা হওয়াতে বহিরাগতদের তেমন পুলিশি নজরদারি নেই। তাই অনায়াসে তারা ঘুরে বেড়াতে পারে এবং তাদের কার্যক্রম বিস্তার ঘটাতে পারেন নির্দ্বিধায়। এছাড়াও এই অঞ্চলের বাসার মালিকরা প্রবাসে বসবাস করায় তাদের পরিবর্তে তত্ত্বাবধায়ক বাসাবাড়ি দেখাশোনা করেন। যারা বেশিরভাগ অশিক্ষিত বা অল্পশিক্ষিত হয়ে থাকেন আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জঙ্গিরা ভুল তথ্য দিয়ে বাসায় উঠে পড়ে। এছাড়া অনেক সময় ব্যাচেলর ভাড়ার ক্ষেত্রে নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বেশি ভাড়া দিতে রাজি থাকে জঙ্গিরা। যার ফলে লাভের আশায় মালিকরা ভাড়া দিয়ে দেন। এমনকি বেশি ভাড়া আদায়ের প্রবণতা সেখানকার মালিকদের রয়েছে। তারা অনেক সময় স্থানীয় লোকদের বাসা ভাড়া দিতে রাজি থাকেন না। কারণ বাইরের অঞ্চলের মানুষদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া আদায় করা যায়। যা স্থানীয়দের থেকে সম্ভব হয় না।

No comments: