রাজবাড়ীতে ব্যবসায়ীর বাস ভবনে হামলার ঘটনায় প্রতিবাদ সভা

রাজবাঢ়ী প্রতিনিধি: 
রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর বাজারের ব্যবসায়ী বিদুল সাহার বাসভবনে হামলার প্রতিবাদ ও ভ্রাম্যমান আদালতে প্রধানমন্ত্রীকে কুটক্তিকারী ম্যাজিষ্ট্রেটের শাস্তির দাবী জানিয়েছেন ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক দলের নেতারা।

জামালপুর বাজার কালী মন্দির প্রাঙ্গণে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জামালপুর বাজার বণিক সমিতির আয়োজনে বণিক সমিতির সভাপতি মীর মনিরুজ্জামান বাবুর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান মোল্যা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সামছুল আলম মিয়া সুফি, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ বিনয় কুমার চক্রবর্তী, জামালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী সরদার, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও জামালপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান একেএম ফরিদ হোসেন বাবু, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রাম গোপাল চ্যাটার্জী, জঙ্গল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস।  অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন, ব্যবসায়ী কানাই লাল শিকদার, ব্যবসায়ী সাইফুল বিন খালেক, জামালপুর কলেজের প্রভাষক ইমদাদুল হক শামীম, ব্যবসায়ী ফজলুর রহমান বিশ্বাস, হামলার শিকার ব্যবসায়ী অমৃত সাহা, ব্যবসায়ী আব্দুর রব প্রমুখ। এসময় উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি ইদ্রিস আলী ফকির, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, সুধিমহল ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।
উপস্থিত বক্তারা বলেন, ব্যবসায়ী বিদুল সাহার বাসভবনে হামলাকারীদের দ্রুত প্রকাশ্যে বিচার করতে হবে। এজন্য জামালপুরের নেতাদেরকেই দায়িত্ব নিতে হবে। আর যাতে এ ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে দিকে লক্ষ রাখতে হবে। এজন্য হামলাকারীদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে আতœসর্ম্পন করার হুশিয়ারী প্রদান করা হয়। অন্যদিকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শহিদুল ইসলাম, শাহ মোঃ সজিব জামালপুর বাজারে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালিয়ে ডিলিংস লাইসেন্স না থাকার কারণে কাপড় ব্যবসায়ী দেবা ঘোষকে ১০ হাজার টাকা, হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী রাজ কুমার কুন্ডুকে ১০ হাজার টাকা ও রড সিমেন্ট ব্যবসায়ী আরকে ট্রেডার্সকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। ব্যবসায়ীরা আরো বলেন ডিলিং লাইসেন্স কি আমরা জানিনা। আর ব্যবসা করতে হলে লাইসেন্স করতে হবে এটাই স্বাভাবিক। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার পূর্বে ডিলিংস লাইসেন্স সম্পর্কে আমাদের বলা উচিত ছিল। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আমরা যদি লাইসেন্স গ্রহণ না করতাম সেক্ষেত্রে আমাদেরকে আইনের আওতায় আনতে পারত। এসময় ব্যবসায়ী সাইফুল বিন খালেককে গাড়ীতে তোলেন। এসময় ম্যাজিষ্ট্রেট শাহ মোঃ সজিব দাম্ভক্তির সাথে বলেন, মন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী যদি ফোন করে ছাড় দেওয়া হবে না। আমি কারো কর খাজনা দেইনা। এসময় ব্যবসায়ীরা প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠলে জামালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় রক্ষা পান। ব্যবসায়ীরা প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কুটক্তিকারী ম্যাজিষ্ট্রেটের দ্রুত শাস্তির দাবী জানান। নইলে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহনের হুশিয়ারীও জানান উপস্থিত বক্তারা।

তারা আরো বলেন, জামালপুর বাজারে ব্যবসায়ীরা আসতে চায় না কারণ কি। কৃষকদের কাছ থেকে প্রতি মনে ৪০ কেজির পরিবর্তে ৪৫ কেজি করে নেওয়া হচ্ছে। বাজার কমিটি থাকলেও ইজারাদার কমিটি, ব্যবস্থাপনা কমিটির কারণে এ ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে। এজন্য একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করা প্রয়োজন।

No comments: