কার্ড দিতে টাকা আদায়ের অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় ১০ টাকা কেজিতে চাল কেনার কার্ড প্রদানে ইউনিয়ন পরিষদের এক সদস্য ও আওয়ামী লীগের নেতা হতদরিদ্র লোকজনের কাছ থেকে বিভিন্ন হারে টাকা আদায় করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পল্লি রেশনিং কার্যক্রমের আওতায় ৮ অক্টোবর থেকে জুড়ীতে কার্ডের মাধ্যমে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু হয়। উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের পাঁচ হাজার হতদরিদ্র পরিবার এ সহায়তা পাবে। প্রতিটি ইউনিয়নে নির্ধারিত ডিলারের কাছ থেকে চাল কেনা যাবে। বছরের মার্চ, এপ্রিল, সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে এ কর্মসূচি চালু থাকবে।

সরেজমিনে গত মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা সদরের জাঙ্গিরাই এলাকায় জায়ফরনগর ইউনিয়নের ডিলার আবদুল লতিফের দোকানে গিয়ে দেখা যায়, চাল কিনতে বেশ কিছু হতদরিদ্র নারী-পুরুষ ভিড় জমিয়েছেন। এ সময় সদর জায়ফরনগর ইউনিয়নের বেলাগাঁও গ্রামের বাসিন্দা ছালেক মিয়া, মদরিছ আলী, সাফিয়া খাতুনসহ আরও চার-পাঁচজন অভিযোগ করেন, কার্ড তৈরিতে খরচের কথা বলে স্থানীয় ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ফজলুর রহমান ওরফে বজলু মেম্বার তাঁদের কাছ থেকে ১০০ টাকা করে নিয়েছেন। একই কথা বলে ওই এলাকার আফিয়া বেগম নামের এক নারীর কাছ থেকে ৫০০ টাকা নিয়েছেন ওই ইউপি সদস্য। ফজলুর রহমান জায়ফরনগর ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের বাছাই তালিকা কমিটির সদস্য ও আওয়ামী লীগের ৫ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি।

চাল বিতরণ কার্যক্রম দেখতে আসা আওয়ামী লীগের উপজেলা কমিটির সদস্য আবদুস সালাম ও আবদুল কাদির ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, টাকা নেওয়ার ব্যাপারে তাঁদের কাছেও বেশ কয়েকজন হতদরিদ্র অভিযোগ করেছেন। এতে সরকারের উদ্যোগ ও দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে বলে তাঁরা মন্তব্য করেন।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য ফজলুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, ‘এসব মিথ্যা কথা। আমি কারও কাছ থেকে টাকাপয়সা নিইনি।’

তবে জায়ফরনগর ইউপির চেয়ারম্যান মাছুম রেজা বলেন, ‘কার্ড দেওয়ার কথা বলে টাকা নেওয়ার ব্যাপারে অভিযোগ পাওয়ার পর আমি বজলু মেম্বারকে ডেকে আনি। তিনি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে স্বীকার করেছেন। তাঁকে দ্রুত লোকজনের টাকা ফেরত দিতে বলেছি।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও হতদরিদ্র বাছাই তালিকা করার উপজেলা কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নাছির উল্লাহ খান বলেন, ‘কার্ড প্রদানে টাকা নেওয়ার কোনো নিয়ম নেই। গরিব মানুষের সঙ্গে এ ধরনের প্রতারণা মোটেই সমীচীন হয়নি। খোঁজ নিয়ে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

No comments: